বাঁশখালী পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হলেন এড. তোফাইল বিন হোছাইন

১১৩

চট্টগ্রামের বাঁশখালী পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট এসএম তোফাইল বিন হোছাইন নৌকা প্রতীক নিয়ে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছেন। তোফাইল বিন হোছাইন নৌকা নৌকা প্রতীকে ১৪ হাজার ৩ শত ৪৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

অনিয়মের অভিযোগ এনে সকাল সাড়ে ১১টায় ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাবেক মেয়র কামরুল ইসলাম হোছাইনী। তিনি মোবাইল ফোন প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৩৬৫ ভোট।

- Advertisement -

নির্বাচিত সাধারণ কাউন্সিলরগণ হলেন- ১ নম্বর ওয়ার্ডে আনসুর আলী তালুকদার, ২ নম্বর ওয়ার্ড কাঞ্চন বড়ুয়া, ৩ নম্বর ওয়ার্ড জামশেদ আলম, ৪ নম্বর ওয়ার্ড আরিফ মঈনুদ্দিন, ৫ নম্বর ওয়ার্ড মোহাম্মদ ইসহাক, ৬ নম্বর ওয়ার্ড আকতার হোসেন, ৭নম্বর ওয়ার্ড আবদুল গফুর, ৮ নম্বর ওয়ার্ড প্রনব দাশ, ৯ নম্বর ওয়ার্ড বদিউল আলম। এছাড়া সংরক্ষিত নারীদের মধ্যে রোজিনা আক্তার (১,২,৩ নম্বর ওয়ার্ড), রোজিয়া সোলতানা রোজি (৪,৫,৬ নম্বর ওয়ার্ড), সাদেকা নুর খানম বিউটি (৭,৮,৯ নংম্বর ওয়ার্ড)।

রবিবার (১৬ জানুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত এ ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। বাঁশখালী পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মেয়রপ্রার্থী অ্যাডভোকেট এসএম তোফায়েল বিন হোছাইন (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলাম হোসাইনী (মোবাইল ফোন), দুই মেয়র প্রার্থী ছাড়াও এবার সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১০জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৪ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

সহকারী রিটার্নিং অফিসার মুহাম্মদ ফয়সাল আলম জানান, বাঁশখালী পৌরসভায় মোট ২৬ হাজার ৯৮০ জন ভোটার আছেন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১৪ হাজার ৯৪ জন এবং মহিলা ভোটার ১২ হাজার ৮৮৬ জন। কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীন ভাবে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এবারের পৌর নির্বাচনে নারী ভোটারদের উপস্থিতি ছিল দেখার মতো। নির্বাচনকে ঘিরে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। তবে অনিয়মের অভিযোগ তুলে স্বতন্ত্রপ্রার্থী কামরুল ইসলাম হোছাইনী বেলা সাড়ে ১১টার সময় ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। এ নির্বাচনে সিংহভাগ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন।

চট্টগ্রামের সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর হোসাইন জানান, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। ৯ ওয়ার্ডের ১১টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ কোনোরকম অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সম্পন্ন হয়েছে। ভোটগ্রহণ পর্যন্ত যাতে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা না হয়, সে জন্য স্ট্রাইকিং ফোর্সসহ বিজিবি, পুলিশ ও র‌্যাব মাঠে তৎপর ছিলেন।

তিনি আরও বলেন, ভোট কেন্দ্রগুলোতে একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিযুক্ত ছিলেন। ভোটকেন্দ্রের নিরাপত্তায় ২ প্লাটুন বিজিবি, ৩২০ জন পুলিশ সদস্য ও ১ প্লাটুন র‌্যাব সদস্য দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া প্রতি কেন্দ্রে ৮ জন পুলিশ ও ৯ জন আনসার-ভিডিপি সদস্য দায়িত্ব পালন করেছেন।

বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. কামাল উদ্দিন বলেন, ১১টি কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট সম্পন্ন হয়েছে। কোথাও থেকে কোনো ধরনের অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

নৌকা প্রতীক প্রার্থী এসএম তোফাইল বিন হোসাইন বলেন, জনগণ নৌকার প্রতি ভালোবাসা দেখিয়ে স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দিতে এসেছে। ইভিএম ভোটে কখনও কারচুপি করা যায় না। স্বতন্ত্র প্রার্থীর অভিযোগ অবান্তর।

এই বিভাগের আরও সংবাদ